মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

জেলা প্রশাসকের বার্তা

সচেতনতার প্রথম শর্তই হচ্ছে তথ্য সমৃদ্ধ হওয়া। মানুষ যখন তথ্যসমৃদ্ধ হবে তখনই কেবল সে তার অধিকার, দায়িত্ব-কর্তব্য ও করণীয় সম্পর্কে সচেতন হতে পারবে। তথ্যকে দেশের প্রতিটি মানুষের কাছে পৌঁছে দিতে পারলে এবং প্রতিটি মানুষকে প্রযুক্তির আওতায় আনতে পারলে তখনই কেবল বাংলাদেশকে ডিজিটাল হিসাবে গড়ে তোলার যে প্রয়াস তা বাস্তবায়িত হবে। জেলা প্রশাসন হচ্ছে সরকার এবং জনগণের মধ্যে তথ্য আদান-প্রদানের একটি মাধ্যম। সরকারের প্রদত্ত সকল সুবিধাদি জনগণের কাছে পৌঁছায় মাঠ প্রশাসনের মাধ্যমে। একইভাবে জনগণের দুঃখ-কষ্ট, প্রাপ্তি-অপ্রাপ্তি ও অভিযোগ জানাবার জায়গাও জেলা প্রশাসন। তাই জেলা প্রশাসন তার এই পোর্টালের মাধ্যমে একাধারে যেমন জেলার সকল তথ্যকে তুলে ধরার চেষ্টা করেছে তেমনি জনগণকেও সুযোগ করে দিয়েছে তাঁদের বক্তব্যকে জেলা প্রশাসন তথা সরকারের কাছে পৌঁছে দেওয়ার। দেশের এবং প্রবাসী জনগণ এই পোর্টালের মাধ্যমে জামালপুর জেলার দর্শনীয় স্থান থেকে শুরু করে জেলা প্রশাসন কর্তৃক গৃহীত সকল উন্নয়ন কার্যক্রম সম্পর্কে অবহিত হতে পারবে। অর্থনৈতিকভাবে খুব শক্তিশালী না হলেও জামালপুর জেলাটি একটি সম্ভাবনাময় এবং দ্রুত উন্নয়নশীল জেলা। এ জেলার ব্র্যান্ডিং আইটেম হচ্ছে নকশিকাঁথা। এছাড়াও এখানকার কাঁসাশিল্প এবং পাটশিল্প সারা দেশব্যাপী সুপরিচিত। হযরত শাহজামাল (রা.)-এর মাজার, লাউচাপড়া পিকনিক স্পট, গান্ধী  আশ্রমের মত আকর্ষণীয় স্থানসমূহের কারণে জামালপুর পর্যটকদের কাছেও বেশ জনপ্রিয়।বকশীগঞ্জ উপজেলার ধানুয়া কামালপুর বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ চলাকালীন সম্মুখ সমরের একটি গৌরবোজ্জল ইতিহাস ধারণ করে আছে। জামালপুরের জেলা প্রশাসনের সাধারণ তথ্যের সাথে সাথে এই পোর্টালটিতে এ জেলার ইতিহাস, সংস্কৃতি ও সৌন্দর্যকে সন্নিবেশিত করার চেষ্টা করা হয়েছে। কোন কোন ক্ষেত্রে এখনও উন্নয়নের কাজ চলমান রয়েছে। সর্বোপরি এ পোর্টালটি জামালপুর জেলার তথ্যভান্ডার এবং একই সাথে এটি সাধারণ মানুষের সাথে প্রশাসনের একটি সেতুবন্ধন হিসাবে কাজ করবে। নকশিকাঁথার জামালপুর জেলায় সকলকে স্বাগতম।  

ধন্যবাদান্তে-

মুর্শেদা জামান

জেলা প্রশাসক, জামালপুর।

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter