মেনু নির্বাচন করুন
পাতা

জেলা প্রশাসক জনাব মোহাম্মদ এনামুল হক এর প্রোফাইল

জনাব মোহাম্মদ এনামুল হক কুমিল্লা জেলার ব্রাহ্মনপাড়া উপজেলার শশীদল গ্রামে এক সম্ভ্রান্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন।

তিনি জেলা প্রশাসক হিসেবে গত ২৬ আগস্ট ২০১৯ এ জেলায় যোগদান করেছেন। প্রশাসনের বিভিন্ন স্তরে তিনি সুদীর্ঘ ১৭ বছর কাজ করার অভিজ্ঞতা অর্জন করেছেন। জেলা প্রশাসক হিসেবে যোগদানের পূর্বে তিনি মাননীয় পরিকল্পনা মন্ত্রীর একান্ত সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

জনাব মোহাম্মদ এনামুল হক সহকারী কমিশনার হিসেবে কুড়িগ্রাম এবং রাজশাহী জেলায়, প্রথম শ্রেনীর ম্যাজিস্ট্রেট হিসেবে বান্দরবান পার্বত্য জেলায়, সহকারী কমিশনার (ভূমি) হিসেবে চট্রগ্রামের বাঁশখালী উপজেলায়, উপজেলা নির্বাহী অফিসার হিসেবে  চাঁদপুর জেলার ফরিদগঞ্জ উপজেলা ও রাজশাহী জেলার দূর্গাপুর উপজেলায় এবং অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক হিসেবে ফেনি জেলায় কাজ করেছেন।

এছাড়া প্রজেক্ট ম্যানেজার হিসেবে বাংলাদেশে চলমান মেগা প্রকল্পগুলোর মধ্যে অন্যতম মেট্রোরেল  প্রকল্পে কাজ করেছেন । তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের একসেস টু ইনফর্মেশন (এটুআই) প্রকল্পে প্রায় আড়াই বছর ই-সার্ভিস স্পেশালিস্ট হিসেবে কাজ করেছেন।

এসময়ে তিনি ভূমি সেবা আধুনিকায়ন এবং ডিজিটালাইজেশনের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন। তিনি সফলতার সাথে ভূমি তথ্য ও সেবা ফ্রেমওয়ার্ক, (Land Information and Service Framework-LISF), ই-মিউটেশন (e-Mutation), আরএস-কে সিস্টেম (Revisional Survey-Khatian System) এবং উত্তরাধিকার ক্যালকুলেটর (Inheritance calculator) তৈরি করেছেন। উত্তরাধিকার ক্যালকুলেটরটি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা নিজে উদ্বোধন করেছেন। এই সফটওয়ারগুলির প্রত্যেকটিই বর্তমানে ভূমিসেবা প্রদানের ক্ষেত্রে সফলতার সাথে সারা দেশে ব্যবহৃত হচ্ছে।

জনাব মোহাম্মদ এনামুল হক জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে রসায়ন বিভাগে প্রথম শ্রেনীতে প্রথম স্থান অধিকার করে বিএসসি এবং প্রথম শ্রেনীসহ এমএসসি ডিগ্রি অর্জন করেন। পরবর্তীতে তিনি যুক্তরাজ্যের গ্রীনউইচ বিশ্ববিদ্যালয় থেকে Distinction সহ পরিবেশ সংরক্ষণ (Environmental Conservation) বিষয়ে দ্বিতীয় মাস্টার্স ডিগ্রি অর্জন করেন।

জনাব মোহাম্মদ এনামুল হক টেকসই ইউনিয়ন ডিজিটাল সেন্টার, আইসিটি ভিত্তিক সেবা প্রদান, ই-সেবা প্রদানকে পৃষ্ঠপোষকতাসহ বিভিন্ন ধরনের ইনোভেশনের জন্য জেলা ও বিভাগীয় পর্যায়ে যথাক্রমে ২০১৫ ও ২০১৬ সালে পরপর ২ বার শ্রেষ্ঠ কর্মকর্তা নির্বাচিত হন।

এছাড়াও জনসেবায় (public service) গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখার  স্বীকৃতিস্বরুপ বাংলাদেশ সরকার তাকে দুইবার (২০১৬ এবং ২০১৮ সালে) জনপ্রশাসন পদক প্রদান করেন।

তিনি যুক্তরাষ্ট্র, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, ভারত, ফিলিপাইন, সিঙ্গাপুর, মালয়েশিয়া, মিশর, সংযুক্ত আরব আমিরাত, কাতার, তুরস্ক ইত্যাদি দেশে উচ্চতর প্রশিক্ষণ, সেমিনার, কনফারেন্স এবং এক্সপোজার ভিজিটে অংশগ্রহণ করেছেন।

 

ছবি


সংযুক্তি


সংযুক্তি (একাধিক)



Share with :

Facebook Twitter